মেসিকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিলেন রোনালদো

এবারের লা লিগাটা বেশ জমে উঠেছে। ১৫ ম্যাচ শেষ হওয়ার পরও বলা যাচ্ছে না কার কাছে যাবে এবারের লিগ শিরোপা। গত কয়েক মৌসুমে বছরের এ পর্যায়ের আসার পরই নিশ্চিত জানা যেত লা লিগার শিরোপা কোন শহরে যাচ্ছে। কিন্তু এবার সেটা বলার জো নেই। কিন্তু এত জমজমাট লা লিগাতেও খামতি রয়ে যাচ্ছে এবার। কারণ, মেসি তাঁর মতো আলো ছড়ালেও, তাঁর সঙ্গে পাল্লা দেওয়ার মতো আর কেউ যে নেই স্পেনে।

নয় মৌসুম রিয়াল মাদ্রিদে কাটিয়ে এবারই জুভেন্টাসে পাড়ি দিয়েছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। ফলে বিশ্বসেরার প্রতিদ্বন্দ্বিতা এখন আর স্পেনে আটকে নেই। মেসি-রোনালদো দুজনই আলো ছড়াচ্ছেন এ মৌসুমে। তবে দুজনে ভিন্ন লিগে। নতুন লিগে দারুণ মানিয়ে নিয়েছেন রোনালদো। জুভেন্টাসের হয়ে মৌসুম শুরুর ৬০ বছর পুরোনো রেকর্ড ভেঙে দিয়েছেন। এমন অবস্থায় স্পেনের কথা ভুলেই যাওয়ার কথা তাঁর। কিন্তু একজনের কথা ভুলতে পারছেন না রোনালদো। প্রতিদ্বন্দ্বী মেসিকে! লা গেজেত্তা দেল্লো স্পোর্তকে বলছেন, ‘আমি হয়তো ওকে (মেসিকে) একটু মিস করছি। আমি ইংল্যান্ড, স্পেন, ইতালি, পর্তুগাল , জাতীয় দল সবখানেই খেলেছি, আর ও স্পেনেই রয়ে গেল। হয়তো, ওর আমাকে আরও দরকার।’

আর এ কারণেই চান তাঁর দেখাদেখি মেসিও ইতালিতে আসুক, আবারও দুজনের মধ্যে একটু প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে উঠুক, ‘আমার কাছে জীবন মানেই চ্যালেঞ্জ। আমি চ্যালেঞ্জ পছন্দ করি এবং আমি চাই এটা আমাকে সুখী করুক। আমার ভালো লাগবে যদি সেও একদিন ইতালিতে আসে। আমি যা করেছি, তা করুক। চ্যালেঞ্জটা নিক। তবে সে ওখানেই সুখী, আমি এটা সম্মান করি। সে দারুণ খেলোয়াড়, দারুণ এক ব্যক্তি। কিন্তু আমি কোনো কিছু মিস করি না (স্পেনের)। এটাই আমার নতুন জীবন এবং আমি খুশি।’

যুগের সেরা দুজন নিজেদের নিয়ে ব্যস্ত থাকলেও চলেছে এত দিন। তবে এ বছর অনেক কিছু বদলে গেছে। গত এক দশকে এই প্রথম বছরের সেরা খেলোয়াড়ের সব পুরস্কার জিতে নিয়েছেন এ দুজনের বাইরে অন্য কেউ। সাবেক সতীর্থ লুকা মদরিচের কাছে এবার সেরা খেলোয়াড়ের সব ট্রফি খুঁইয়েছেন রোনালদো। মেসি ছাড়া এ কাজ গত এক দশকে খুব কম লোকই করতে পেরেছেন। আর ব্যালন ডি’অর প্রতিযোগিতায় তো মেসি ছাড়া কেউওই করতে পারেননি। এবারের ব্যালন ডি’অরেও রোনালদো এগিয়ে ছিলেন অনেকটাই। রিয়ালকে টানা তৃতীয় চ্যাম্পিয়নস লিগ এনে দেওয়ায় তাঁর ১৫ গোলের ছিল অনেক বড় ভূমিকা।

এ নিয়ে তাঁর বন্ধু-পরিবার হতাশা প্রকাশ করেছে সরাসরি। রোনালদো অবশ্য মদরিচকে অভিনন্দনই জানালেন, ‘আমার তো ধারণা ব্যালন ডি’অর আমার প্রতি বছর জেতা উচিত। আমি এ জন্য পরিশ্রম করি। কিন্তু না জিতলে সব শেষ হয়ে গেছে এমন নয়। আমি এ সিদ্ধান্তকে সম্মান জানাই। মাঠে আমি জেতার জন্য সম্ভাব্য সবকিছু করেছি, সংখ্যা মিথ্যা বলে না। কিন্তু পাইনি বলে আমি কম খুশি, তাও না। আমার অসাধারণ বন্ধু আর পরিবার আছে, আমি বিশ্বের অন্যতম সেরা ক্লাবের হয়ে খেলি। আপনার ধারণা আমি বাসায় গিয়ে কান্নাকাটি করি এ নিয়ে? আমি অবশ্যই হতাশ হয়েছি কিন্তু জীবন এগিয়ে যায়। আমি আরও বেশি পরিশ্রম করব। যাই হোক, মদরিচকে অভিনন্দন, সে এটার যোগ্য। কিন্তু আগামী বছর আবার দেখা হবে এবং আমি সর্বোচ্চ চেষ্টা করব জেতার।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Shares