নির্বাচনী মাঠে সেনাবাহিনী

৩৮৯টি দায়িত্বপ্রাপ্ত এলাকায় সেনা এবং ১৮টি এলাকায় থাকবেন নৌবাহিনীর সদস্যরা

আগামীকাল (২৪ ডিসেম্বর) সকাল থেকে একাদশ সংসদ নির্বাচনে উপলক্ষে দায়িত্বপ্রাপ্ত এলাকাগুলোতে (জেলা ও উপজেলা) মাঠে নামছে সেনা ও নৌ বাহিনী। আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) এর সহকারী পরিচালক রেজাউল করিম শামীম ঢাকা ট্রিবিউনকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, রবিবার থেকে যেসব জায়গায় সেনা ও নৌবাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে তারা সোমবার সকাল থেকে স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে তাদের কার্যক্রম শুরু করবেন।

আইএসপিআর মহাপরিচালক আরও জানান, আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে রবিবার সারাদেশের ৩৮৯টি উপজেলায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সদস্যদের মোতায়েন করা হয়েছে। পাশাপাশি ১৮টি উপজেলায় মোতায়েন করা হয়েছে নৌবাহিনীর সদস্যদের।

এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশনের যুগ্ম সচিব ফরহাদ আহমেদ খান ঢাকা ট্রিবিউনকে জানান, “২৪ ডিসেম্বর সকাল থেকে দেশের ৩৮৯টি উপজেলায় মাঠে নামবে সশস্ত্র বাহিনী। এ বিষয়ে আইএসপিআর-এর পক্ষ থেকে আলাদা বিবৃতি দেওয়া হবে। আগামীকাল থেকেই সারাদেশে সেনাবাহিনী মোতায়েন শুরু হবে।”

ইভিএমের কেন্দ্রগুলোতে দায়িত্বে থাকবে সেনাবাহিনী

ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম)-এর ছয়টি নির্বাচনী আসনে প্রযুক্তিগত সহায়তার জন্য নিয়োজিত আছেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৩,৩০০ জন সদস্য। ইভিএমের কেন্দ্রগুলোতে প্রশিক্ষণ সহ বিভিন্ন ধরনের সহায়তা দেবেন তারা।

লটারির মাধ্যমে দেশের ছয়টি আসনে ইভিএম-এ ভোট গ্রহনের সিদ্ধান্ত নেয় নির্বাচন কমিশন। সেগুলো হলো- ঢাকা-৬ ও ১৩, চট্টগ্রাম-৯, রংপুর-৩, খুলনা-২ এবং সাতক্ষীরা-২। এসব আসনে প্রথমবারের মতো জাতীয় নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে ভোট দেবেন ভোটাররা। আসনগুলোতে মোট কেন্দ্রের সংখ্যা ৮৪৫ টি।

প্রসঙ্গত, নির্বাচন উপলক্ষে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর জন্য মোট ৩৯২ কোটি ৯৩ লাখ টাকা বরাদ্দ করেছে ইসি।

এর মধ্যে- সেনাবাহিনী ৬০ কোটি ৩৭ লাখ, পুলিশ ১০২ কোটি, বিজিবি ৫৩ কোটি, আনসার ১৬৩ কোটি, র‍্যাব ১৩ কোটি এবং অন্যান্যরা পাচ্ছে ১ কোটি ৫৬ লাখ টাকা।

নির্বাচন কমিশনের বাজেট শাখার জ্যেষ্ঠ সহকারী সচিব এনামুল হক ঢাকা ট্রিবিউনকে জানান, আমরা সেনাবাহিনীকে ৬০ কোটি ৩৭ লাখ টাকা দিয়েছি।

এছাড়া, পুলিশ, র‍্যাব সহ অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকেও তাদের জন্য বরাদ্দকৃত টাকা দেওয়া হয়েছে বলে আরও জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, গত ২২ নভেম্বর নির্বাচনের মাঠে সেনাবাহিনী মোতায়েনের কথা জানিয়েছিলেন সিইসি কেএম নুরুল হুদা।

দায়িত্বপ্রাপ্ত এলাকাগুলোতে আগামী ২ জানুয়ারি পর্যন্ত মাঠে থাকবেন সেনা ও নৌ বাহিনীর সদস্যরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Shares