নোয়াখালীতে গৃহবধূকে গণধর্ষণের ঘটনায় দুই গ্রেফতার

নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলার চরজুবলী ইউনিয়নের চরবাগ্গা গ্রামে স্বামী-সন্তানকে বেঁধে চার সন্তানের জননীকে (৩২) গণধর্ষণের ঘটনায় আরও একজন গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার দিবাগত রাত ১১টার দিকে ওই গৃহবধূর স্বামী বাদী হয়ে মামলাটি করার পর এ নিয়ে দুই আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) মো. ইলিয়াস শরীফ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, মামলার পর অভিযান চালিয়ে নোয়াখালী ও লক্ষ্মীপুরে থেকে গৃহবধূ গণধর্ষণ মামলার দুই আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। তদন্তের স্বার্থে তাদের নাম গোপন রাখা হয়েছে। বাকিদের গ্রেফতার করতে নোয়াখালী, ফেনী, লক্ষ্মীপুর ও লাকসামে পুলিশের চারটি টিম কাজ করছে।
চরজব্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নিজাম উদ্দিন জানান, ভিকটিমের স্বামী স্থানীয় সন্ত্রাসী সোহেলসহ নয়জনকে আসামি করে মামলা করেছেন।

নির্যাতিত গৃহবধূর ভাষ্য, রবিবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে তাদের ঘরের দরজা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে সোহেল ও তার সহযোগী চৌধুরী, সহেল, আনছার মাঝির জামাই, বেচু, হেঞ্জু, সোহাগসহ নয়জন। সন্ত্রাসীরা তার স্বামী ও ছেলে-মেয়েদের বেঁধে মারধর করে। এরপর তাকে (ভিকটিম) উঠানে নিয়ে যায়। পরে কাপড় দিয়ে গৃহবধূকে বেঁধে তাকে গণধর্ষণ করে সন্ত্রাসীরা। পাশবিক লালসা চরিতার্থ করার পর গৃহবধূকে কুড়াল ও লাঠি দিয়ে বেদম পিটিয়ে জখমও করে তারা। এরপর তাকে পুকুরঘাটে নিয়ে জবাই করার চেষ্টা করলে গৃহবধূ তার সন্তানদের কথা বলে প্রাণভিক্ষা চান। এ সময় চিৎকার-চেঁচামেচিতে স্থানীয়রা ছুটে এলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়।

সোমবার সকালে গ্রামবাসী ওই গৃহবধূকে উদ্ধার করে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. সৈয়দ মহিউদ্দিন আবদুল আজিম জানান, প্রাথমিকভাবে ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে। গৃহবধূর শরীরের বিভিন্ন অংশে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। গাইনি বিভাগের তত্ত্বাবধানে ধর্ষিতার চিকিৎসা চলছে। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর বিস্তারিত বলা যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Shares