বোনের লাশের পাশে রক্তাক্ত-আতঙ্কিত আসিল

বিদ্রোহীদের দখলে থাকা উত্তর-পশ্চিম সিরিয়ায় প্রায় প্রতিদিনই বিমান হামলা ও অভিযান চালায় দেশটির প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের বাহিনী। আসাদ বাহিনীর সাম্প্রতিক বিমান হামলায় অন্তত তিন শিশুসহ পাঁচ সাধারণ নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে বহু মানুষ। মঙ্গলবার পর্যবেক্ষক দল জানিয়েছে, বিমান হামলার কারণে খান শেইখাউন শহর ছেড়ে পালাতে বাধ্য হয়েছেন হাজার হাজার বাসিন্দা।

শেইখাউন শহরের ছোট্টশিশু আসিল কাতরান। উদ্ধারকারীরা তাকে ধসে পড়া বাড়ির ধ্বংসস্তূপের মধ্যে থেকে বের করে আনেন। এ সময় তারা দেখেন, ছোট্ট আসিলের পাশে পড়ে রয়েছে বোনের নিথর দেহ। সেই ধ্বংসস্তূপের মধ্যে আতঙ্কে ভরা দু’টো নিষ্পাপ চোখ চেয়ে রয়েছে সে। ধুলা, ইট-সুরকির গুঁড়ায় ঢেকেছে নীলচে সোয়েটার। হাত-মুখে শুকিয়ে যাওয়া রক্ত। চোখ-মুখ আতঙ্ক আর শূন্যতায় ভরা।

এমন অসংখ্য হৃদয়বিদারক দৃশ্যের শহর এখন খান শেইখাউন। গত দশ দিন ধরে সিরিয়ার উত্তর-পশ্চিম অংশে একের পর এক বিমান হামলা চালিয়ে যাচ্ছে আসাদ বাহিনী। আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম বলছে, ইদলিব ও উত্তর সিরিয়া সংলগ্ন এলাকায় ইতিমধ্যেই ১৩টি বিমান হামলা চালানো হয়েছে।

সিরিয়ায় আসা ব্রিটেনের মানবাধিকার পর্যবেক্ষক দলের ডিরেক্টর রামি আব্দুল রহমান জানান, দামেস্ক-আলেপ্পো আন্তর্জাতিক রোড’কে লক্ষ্য করে বেশি বোমা ফেলা হচ্ছে। এসবের জেরে খান শেইখাউন এখন ভুতুরে শহর। সিরিয়ার সরকারি সংবাদমাধ্যমে জানানো হয়, হামা প্রদেশের উত্তর অংশের বেশ কয়েকটি শহরে ছোড়া রকেটে একজনের মৃত্যু হয়েছে।

ইদলিবে ভারী অস্ত্র ব্যবহার থামাতে গত বছর রাশিয়া ও তুরস্কের মধ্যস্থতায় সিরিয়ার সঙ্গে একটি চুক্তি হয়েছিল। তবে সে চুক্তি বারবারই ভঙ্গ করছে আসাদ বাহিনী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Shares