টানা ৬ ঘণ্টা ধান কাটলেন ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক

এবার মুন্সীগঞ্জে একসঙ্গে কৃষকদের ধান কাটতে মাঠে নামলেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মো. রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) জেলার সিরাজদিখান উপজেলার কুচিয়ামোড়া চড়ে এক কৃষকের ক্ষেতে নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে ধান কাটতে নামেন তারা দুজন।

স্থানীয় সূত্র জানায়, জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে সিরাজদিখান উপজেলার কুচিয়ামোড়া চড়ে হাসেম বেপারীর জমির ধান কেটে সহযোগিতা করেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা।

বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ফয়সাল মৃধা ও সাধারণ সম্পাদক ফয়েজ আহমেদ পাভেলের নেতৃত্বে কৃষক হাসেম বেপারীর ধান কাটা শুরু হয়। বেলা ১১টার দিকে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মো. রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাংগঠনিক সম্পাদক সাবরিনা ইতিসহ কেন্দ্রীয় কমিটির নেতারা ধান কাটায় যোগ দেন। বিকেল ৪টার দিকে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী ও সহ-সম্পাদক রনী চৌধুরী ধান কাটায় অংশ নেন। প্রায় ছয় ঘণ্টা ধরে মাঠে ধান কাটেন তারা।

এছাড়া কৃষকের ধান কাটায় অংশ নিয়েছেন সিরাজদিখান উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সৈকত মাহমুদ, সাধারণ সম্পাদক পারভেজ চোকদার পাপ্পু, শ্রীনগর উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি লিজু আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক আবির আহাম্মেদ সৈকত, লৌহজং উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রাজিব বাসার, সাধারণ সম্পাদক শেখ শাওন, শ্রীনগর সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি আরিফুল ইসলাম রাব্বী ও সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম লিমন প্রমুখ।

ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা জানান, ছাত্রলীগ সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক নেতাকর্মীদের নিয়ে কৃষকের মাঠের ধান কাটায় সহযোগিতা করায় কৃষকদের উপকার হয়েছে। এ কাজটি কৃষকদের মধ্যে উৎসাহ-উদ্দীপনা বাড়িয়ে দিয়েছে।

ধান কাটার বিষয়টি নিয়ে ফেসবুকে কেউ কেউ সমালোচনা করছেন বিষয়টি কীভাবে নিচ্ছেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা এমন প্রশ্নের জবাবে ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা জানান, আপনি ভালো কাজ করলেও সমালোচকরা সমালোচনা খুঁজে বের করবে। আমরা এখানে এসেছি আমাদের সংগঠনের নেতাকর্মীদের উৎসাহিত করতে। যাতে কৃষকদের সহায়তা করে তারা। আমরা কৃষকদের সঙ্গে রয়েছি। এ বিষয়ে কে কি বললো তা দেখার বিষয় নয়, আমরা কৃষকদের সহযোগিতা করছি।

এর আগে বুধবার (২২ মে) ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী সাভারে এক কৃষকের ক্ষেতের ধান কেটে দেন। বিষয়টি নিয়ে কেউ কেউ সমালোচনা করেছেন আবার কেউ কেউ ছাত্রলীগের প্রশংসা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>

Shares